সাফল্য

১.
তাঁকে ঘর থেকে বের করে দেয়া হয়েছিলো। আক্ষরিক অর্থেই তাড়িয়ে দেয়া হয়েছিলো। হোমলেস পুওর গাই। এইরকম ঘরবাড়িহীন লোককে আমরা জীবনে সম্পূর্ণ ব্যর্থ বলি। এই জীবন আমাদের কারোই কাম্য নয়। কিন্তু আমি যে প্রিয় মানুষটার কথা বলছি তিনি হচ্ছেন পৃথিবীর বুকে এ যাবৎ আসা সবচাইতে সফল মানুষদের মাঝে একজন। প্রতিদিন সালাতে অন্তত পাঁচবার এই অসাধারণ সফল মানুষটার নাম আমরা উচ্চারণ করি। অসাধারণ এই মানুষটা হচ্ছেন আমাদের সবার প্রিয় ইবরাহীম আলাইহিস সালাম।

২.
পৃথিবীর বুকে সবচাইতে বড় প্রাসাদ যার ছিলো সেগুলোর মাঝে সবচাইতে অসাধারণ ছিলো তার প্রাসাদ। সে ছিলো আপাতঃদৃষ্টিতে একজন সফল শাসক। তার কথা অমান্য করার সাহসও কেউ করতো না। তার হুকুম তামিল করার জন্যে চাকর বাকর, প্রজা হতে শুরু করে এক বিশাল শক্তিশালী সেনাবাহিনী ছিলো। ধন সম্পদ আর ক্ষমতার অনন্য এক উদাহরণ ছিলো সে। আমরা এইরকম একটা সফল জীবনই চাই। অথচ দুনিয়ার বুকে বিচরণ করা সবচেয়ে ব্যর্থ মানুষদের মাঝে আমরা তাকেই স্মরণ করি। ফেরাউন কে।

৩.
বছরের পর বছর নির্মম আঘাত সইতে হয়েছিলো তাঁকে। হতে হয়েছে রক্তাক্ত। তাঁকে যারা ভালোবাসতো, যারা তাঁর কথা শুনতো, তাদেরকে খুন করে ফেলা হয়েছে একের পর এক। করা হয়েছে অকথ্য, অবর্ণণীয় নির্যাতন। সবশেষে লুকিয়ে লুকিয়ে তাঁকে নিজের ভূমি ছেড়ে যেতে হয়। কারণ, তখনও তাঁকে খুন করার জন্যে খোঁজা হচ্ছে। সব ছেড়ে, নিজের ভূমি ছেড়ে যাকে লুকিয়ে লুকিয়ে পালাতে হচ্ছে তাঁর মতো ফালতু ক্যারিয়ারের অধিকারী, আর ব্যর্থ মানুষ কে হতে পারে? আমরা এমন জীবন চাই না। আমরা এমন জীবন থেকে মুক্তি চাই, রক্ষা চাই। এইরকম ব্যর্থ হওয়ার স্বপ্ন যেন আমাদের কাউকে না ঘিরে ধরে এই হলো আমাদের কামনা। অথচ এই মানুষটা হচ্ছেন পৃথিবীতে এই পর্যন্ত যত প্রাণ এসেছে, এবং ভবিষ্যতে আসবে, তাদের সবার মাঝে সবচাইতে শ্রেষ্ঠ এবং সবচাইতে সফল। মুহাম্মাদ ইবনে আবদুল্লাহ। সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহী ওয়া সাহবিহী ওয়া সাল্লাম।

৪.
বিল গেটস না। আরেকজন। ধন সম্পদের এমন এক পাহাড় ছিলো তার যে সেইগুলো বিশাল বিশাল ভল্টে রাখতে হতো। কল্পনা করা যায়? তার অনেক অনেক ভল্ট ছিলো এইরকম। সবচাইতে বেস্ট রাইড ছিলো তার, বাড়ির কথা বাদই দিলাম। রাস্তায় টাইট টাইট গেঞ্জি পরে মানুষকে মাসল দেখিয়ে ঘুরে বেড়ানো মানুষ দেখেছেন না? শক্তিশালী মানুষ? কিংবা রেসলিং তো দেখতেন ছোটবেলায়। ইয়া বিশাল বিশাল শক্তিশালী মানুষ। অবলীলায় একজন আরেকজনকে তুলে আছাড় মারছে শুধু শুধু। মনে পড়েছে? এইরকম বিশাল বিশাল কয়েকজন মানুষ লাগতো শুধু একটা ভল্টের চাবি বহন করতে। আবারো বলছি, শুধু একটা চাবি বহন করতেই কয়েকজন মুশকো জোয়ানের ঘাম ছুটে যেতো। ভল্টটা কত্ত বড় একবার ভাবুন। এইরকম অনেকগুলো ভল্ট যার আছে সে কোন লেভেলের জিনিস তা একবার ভাবুন। এর চেয়ে সফল আর কিভাবে হওয়া সম্ভব? এইরকম লাইফ একবার পেলে আর কি লাগে? আমরাতো এমন জীবনই চাই। নিশ্চিন্ত জীবন। নাভিতে সরিষার তেল দিয়ে বীচে শুয়ে থাকবো, আর আরেকটা মানুষ এসে সরিষার তেল হাতে নিয়ে সারা গায়ে ডলে দলাই মলাই করবে চপাৎ চপাৎ করে। ফাইজলামি করলাম! আসলে, ওই মানুষটাই তো সফল। অথচ দুনিয়ার বুকে আরেকজন ব্যর্থ মানুষ হিসেবে তার নাম উঠে গেছে। কারুন তার নাম। চিনেছেন নিশ্চয়ই?

তার মানে কি গরীব হলেই সফল, আর ধনী লোক, ক্ষমতাবান লোক মানেই খবর আছে? এই কথাটা কি আমি একবারো বলেছি? তাহলে ভূল বুঝলেন যে?
ওয়েইট! আরেকজনের কথা বলি।

৫.
তাঁকেও বিশাল সাম্রাজ্য দেয়া হয়েছিলো। দেয়া হয়েছিলো অদ্ভুত কিছু সুপার পাওয়ার। চোখে দেখিনা এমন প্রাণকে করা হয়েছিলো তাঁর হুকুমের আজ্ঞাবহ। প্রাণীদের কথা বোঝার সুপার পাওয়ার দেয়া হয়েছিলো তাঁকে। এত সম্পদ আর ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও তিনি ব্যর্থদের লিস্টে নেই। বরং সফলদের লিস্টের শীর্ষে থাকা মানুষদের একজন। সুলাইমান। আলাইহিস সালাম।

৬.
ওমা!
তাহলে সফলতা আর ব্যর্থতার নির্ণায়ক কি?
আসলে আমরা সবাই, হ্যাঁ, প্রত্যেকটা মানুষই ডুবে আছি ক্ষতির ভিতরে। ডুবছি তো ডুবছিই। প্রত্যেকেই। ধনী বিজনেসম্যান, গবেষক, শিক্ষক, ঠেলাগাড়িওয়ালা, রিকশাওয়ালা, ছাত্র-ছাত্রী, গৃহিনী সবাই ডুবে যাচ্ছি ক্ষতির মাঝে। কিসের ক্ষতি? সময় হারিয়ে ফেলার ক্ষতি। ঠিক কাজ না করে ক্ষতিতে অবিরাম ডুবতে থাকার ক্ষতি। ডুবে যাচ্ছি, তবু বুঝতে না পেরে কিছুই করছি না বাঁচার জন্যে। ডুবে যেতে যেতে সবচাইতে ভয়ংকর ক্ষতিতে চিরদিনের জন্যে ডুবে যাওয়ার ক্ষতি। কেউই এই ক্ষতি থেকে বাঁচবে না। কেউ না।

শুধু সেই বাঁচবে। সেই স্পেশাল। সেই বেঁচে যাবে।
কে?
যে মাত্র চারটা কাজ ঠিকভাবে করবে।
কি সেই চারটা কাজ?
সংক্ষেপে বলি। আবারো বলে দিচ্ছি যে আমি সংক্ষেপে বলছিঃ
১. যে “পরিপূর্ণভাবে” ঈমান আনবে,
২. তারপরে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যে ভালো কাজ করতেই থাকবে,
৩. একই সাথে চারপাশের সবাইকে (হ্যাঁ, সবাইকে) আন্তরিকভাবে সত্যের উপদেশ দেবে এবং
৪. নিজের চারপাশের সবাইকেই আন্তরিকতার সাথে, ভালোবাসার সাথে সবসময় ধৈর্য্য ধরার উপদেশ দেবে।

৪টা সিম্পল কাজ। হ্যাঁ, এই চারটা সিম্পল কাজই করা এত শক্ত মনে করি আমরা। করতে পারি না। বেকুব আর কাকে বলে? কিভাবে এই চারটা কাজ পারফেক্টলি করবেন? সেটা জানতে সুরা আসরের তাফসীর পড়ুন, লেকচার শুনুন। এই সুরা আসরে মাত্র তিনটা পিচ্চি পিচ্চি আয়াত। এক বাক্যের এই সুরাটা দুই লাইনেই শেষ। কিন্তু এই সুরা আসরকে বলা যায় সমগ্র কুরআনের সারসংক্ষেপ। হ্যাঁ, সমগ্র কুরআনের। যদি শুধুমাত্র এই ছোট্ট সুরাটায় কি বলা হয়েছে ঠিকভাবে, সম্পূর্ণভাবে বুঝতে পারি, এবং সেই অনুযায়ী চলতে পারি, তাহলেই আমরা পাশ করে যাবো। গ্যারান্টিড!

আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলা আমাদের সবাইকে অন্তত পাশ করার তৌফিক দিন, যাতে একফোঁটা শাস্তির ভয়াবহতাও আমাদের নাগাল না পায়। পুরস্কার হিসেবে যেন অনন্তকাল আড্ডা মারতে পারি, ঘুরাঘুরি করতে পারি আর শান্তিতে খোলা আকাশের নিচে সবুজ চাদরে ঘুমিয়ে যেতে পারি।

[কিভাবে একদম সহজেই, এমনকি মজায় মজায় জেনে যাবেন সুরা আসরে কি বলা হয়েছে? কমেন্টের লিঙ্কে দেয়া ৮মিনিটের মজার কার্টুনটা মন দিয়ে দেখুন। বুঝে যাবেন।]

————————-
রাত ১০টা ১১ মিনিট,
মুহাররামের ২০ তারিখ,
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হিজরাতের ১৪৩৬ বছর পর।

Advertisements

About মুহাম্মাদ তোয়াহা আকবর

আমি মুহাম্মাদ তোয়াহা আকবর। একাডেমিক পরিচয়ে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ার এবং একজন বায়োটেকনোলজিস্ট। আগ্রহ বিজ্ঞানে এবং গবেষণায়। তারচেয়েও বেশি পড়ানোয়। নৈতিক এবং আদর্শিক জীবনে একজন মনেপ্রাণে মুসলিম। নাস্তিকতা ছেড়ে আল্লাহ সুবহানাহুওয়াতা’আলার অশেষ করুণা আর দয়ায় ইসলামের আলো চিনে এ পথে আসতে পেরেছি ২০১২ তে। এখন শিখছি। আরো বহু দূর পথ পাড়ি দিতে হবে জানি। অনন্তের জীবনের পাথেয় কুড়োতে বড্ড দেরী করে ফেলা একজন দূর্ভাগা হিসেবে নয়, বাঁচতে চাই সোনালি দিন গড়ার প্রত্যয়ে। ক্ষণিকের বালুবেলায় যে কটা মুক্তো কুড়োতে পারি সেই তো আমার লাভের খাতার শব্দমালা। হাঁটার পথে একটা দুটো মুক্তোর কথা, উপলব্ধির কথা লিখবো বলে এখানে পতাকা পুঁতেছি। আমি থাকবোনা একদিন। আমার খুঁজে পাওয়া কিছু মুক্তো হয়তো থেকে যাবে জন্ম থেকে জন্মান্তরে। হয়তো হবে কারো আলোর মশাল। আর সে আগুন ছড়িয়ে যাবে সবখানে।
This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s